ইনশাআল্লাহ জামি‘আ রাহমানিয়া আরাবিয়া মাদরাসায় দাওয়াতুল হকের মাহফিল অনুষ্ঠিত হবে আগামী ১২ ই জুমাদাল উলা, ১৪৪৩ হিজরী, ১৭ ই ডিসেম্বর, ২০২১ ঈসা‘য়ী, শুক্রবার।

হযরতওয়ালা মুফতী মনসূরুল হক সাহেব দা.বা এর লিখিত সকল কিতাব পাওয়ার জন্য ক্লিক করুন

হযরতওয়ালা দা.বা. এর কিতাব অনলাইনের মাধ্যমে কিনতে চাইলে ভিজিট করুনঃ www.maktabatunnoor.com

জামি‘আ রাহমানিয়া আরাবিয়া মাদরাসা থেকে প্রকাশিত একাডেমিক ক্যালেন্ডার পেতে ক্লিক করুন

হযরতওয়ালা দা.বা. কর্তৃক সংকলিত চিরস্থায়ী ক্যালেন্ডার ডাউনলোড করতে ক্লিক করুন

হযরতওয়ালা শাইখুল হাদীস মুফতী মনসূরুল হক দা.বা. এর বয়ান এবং সমস্ত কিতাব, প্রবন্ধ, মালফুযাত একসাথে ১টি অ্যাপে পেতে ইসলামী যিন্দেগী অ্যাপটি আপনার মোবাইলে ইন্সটল করুন। Play Storeএবং  App Store

উলামায়ে কেরামের ৫টি দায়িত্ব ও কর্তব্য

১। মসজিদ বা মাদরাসা কর্তৃপক্ষের পূর্ণ আনুগত্য প্রকাশ করা, বিরোধিতা বা সমালোচনা না করা। প্রয়োজনে গোপনে পরামর্শ দেয়া।

২। সর্বদা (কোন হক্বানী শাইখের মাধ্যমে) নিজের আত্মশুদ্ধির ফিকির করা। জরুরী সকল বিষয় তাঁর সাথে পরামর্শ সাপেক্ষে করা। সকল কাজে সুন্নাতের অনুসরণ করা।

৩। ছাত্রদেরকে তাহক্বীকের সাথে পড়ানো এবং তাদের তা‘লীমের সাথে সাথে তারবিয়াত তথা আমলের ইসলাহ ও আমলী মশকের ব্যবস্থা করা। নিজেকে ছাত্রদের সামনে আলমী নমূনা হিসাবে পেশ করা।

৪। দাড়িবিহীন ছাত্রদের থেকে কোন অবস্থায় শারীরিক খিদমত না নেয়া। তাদের থেকে কোন করজ বা হাদিয়া গ্রহণ না করা। ছাত্রদেরকে বিশেষ করে নাবালেগ ছাত্রদের লাঠি/বেত ইত্যাদি দ্বারা না মারা। কারণ এ ধরনের শাস্তি পিতার জন্যও বৈধ নয়।

৫। কর্তৃপক্ষের পরামর্শক্রমে সকল ভাইদের দীনদার বানানোর লক্ষ্যে দাওয়াত, তাবলীগ, নূরানী তা‘লীমুল কুরআন ও দাওয়াতুল হকের মাধ্যমে দীনের খেদমত করা।

বিঃ দ্রঃ এ ব্যাপারে আরো বিস্তারিত জানার জন্য সংকলকের নামায শিক্ষা ও ইমামগণের জিম্মাদারী পুস্তিকাটি পাঠ করার জন্য উলামায়ে কেরামের খেদমতে অনুরোধ জানানো হল।